×

গাড়ির মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে বিষধর কোবরা সাপ, ভিডিও দেখে গায়ে শিহরণ নেটবাসীর

সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমরা নানা পশু পাখিদের ভিডিও অনায়াসে দেখতে পায়।

আজকাল প্রতিনিয়ত সোশ্যাল মিডিয়ায় পশু-পাখিদের ভিডিও ভাইরাল হচ্ছে। আর তা মানুষের থেকেও বেশি ভাইরাল হচ্ছে। এই ভিডিওগুলি এখন সোশ্যালবাসীদের আনন্দের রসদ। যার মধ্যে রয়েছে, পশুদের নানান ভিডিও। কেউ বিশালাকার সাপকে নিয়ে খেলাধূলা করছে কোনো ভয়ডর নেই। আবার কখনও সাপ গাছে উঠে পড়ছে। আবার কখনো হাতি মগডালে ওঠার চেষ্টা করছে, আবার কখনো হাতি কোমর দুলিয়ে নাচছে, আবার কোনও হাঁস ম্যারাথনে দৌড়চ্ছে।

হ্যাঁ, এরকম একেকটা ভিডিও প্রতিনিয়ত সোশ্যাল মিডিয়ায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। তবে এবার যে ভিডিওটির কথা আলোচনা করা হবে তা দেখে একেবারে চোখ কপালে উঠবে আপনারও। সব চাইতে বড় কথা হল, এরকম পশু-পাখিদের ভিডিও খুব একটা সহজে চোখে পড়ে না কারুরই। তাই সোশ্যাল মিডিয়ার ওপরেই ভরসা রাখতে হবে। এবার একটি বিশালাকার গোখরো সাপের ভিডিও ঝড়ের বেগে ভাইরাল হল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

আজকাল সাপের একাধিক ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হচ্ছে। কখনো খাটের তলা থেকে আবার কখনো জুতোর ফাঁক থেকে আবার কখনো বাথরুম থেকে আবার কখনো মগডাল আবার কখনো ঠাকুর ঘর থেকে উদ্ধার হচ্ছে সাপ, আর সেগুলো প্রকাশ্যে আসার পরেই একেবারে ঝড়ের বেগে ভাইরাল হচ্ছে। এবারে স্কুটি গাড়ির থেকে উদ্ধার হল, একটি গোখরো সাপ।ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে, উড়িষ্যার একটি গ্রামে এক স্কুটি বাইকে হঠাৎ করে ঢুকে যায় একটি ৬ ফুট দৈর্ঘ্যের বিশালাকার গোখরো সাপ। তখন ছিল বর্ষাকাল। আর এই বৃষ্টির আবহাওয়ায় হঠাৎ করে একটি বড় গোখরো সাপ একটি স্কুটি বাইকের মধ্যে ঢুকে পড়ে। যা দেখা মাত্রই স্বাভাবিকভাবেই এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। আর ওই সাপটিকে উদ্ধার করার জন্য একটি সাপ ধরার লোককে ডাকা হয়।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Avinash Yadav..! (@avinashyadav_26)

যার নাম মির্জা মোহাম্মদ আরিফ, তিনি এসে অনেক কায়দা করে শেষমেশ সাপটিকে উদ্ধার করে। আসলে মির্জা মোহাম্মদ আরিফ নিজেই একজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সাপুরে। এর আগেও তিনি বহু এলাকা থেকে বিভিন্ন ধরণের বিষধর সাপ উদ্ধার করেছেন। এই ভিডিওতে দেখা গিয়েছে লোকটি স্টিলের লাঠির মাধ্যমে সাপটিকে উদ্ধার করেছে। ভারতের অন্যতম একটি বিষধর সাপ হল গোখরো। এশিয়া মহাদেশে এদের বাস। এই ভয়ংকর সরীসৃপ প্রাণী একবার কাউকে দংশন করলেই তার মৃত্যু নিশ্চিত। কারণ এই সাপের বিষে রয়েছে নিউরোটক্সিন।

Related Articles