×

‘রানু মন্ডল এর থেকে ভালো গান করে’, বেসুরো গলায় গান গেয়ে অশ্লীল কটাক্ষের শিকার নুসরত জাহান

বসিরহাট কলেজের ৭৫তম জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে গান গাইলেন অভিনেত্রী নুসরাত জাহান।

আপাততঃ টলিউডের মোস্ট চর্চিত নায়িকার মধ্যে অভিনেত্রী-সংসদ নুসরত জাহান অন্যতম। গতবছর থেকেই একাধিক সমালোচনায় আবৃত নুসরত জাহান। স্বামী নিখিল জৈনর সঙ্গে সাংসারিক বিচ্ছেদ, অভিনেতা যশের আগমন অভিনেত্রীর জীবনে, আচমকা গর্ভবতী হয়ে যাওয়া, সবটাই অভিনেত্রীর জীবনকে একাধিক আলোচনায় মুড়িয়ে রেখেছিল। নিখিলের (Nikhil Jain) সঙ্গে বিচ্ছেদের অনেকদিন পরে নুসরত গর্ভবতী হয়েছিলেন, তাঁর সন্তানের পিতার নাম কি সেটাই ছিল অভিনেত্রীকে নিয়ে গসিপের একমাত্র বিষয়!

তবে কোনও কিছুকেই পাত্তা দেননি অভিনেত্রী, বরং গর্ভাবতী অবস্থাও একাধিক ফটোশ্যুট, ভিডিও করে গিয়েছেন নায়িকা। তবে তাঁর পাশে সর্বদা ছিলেন যশ (Yash Dasgupta)। পরে অবশ্য তাঁর সন্তান ঈশানের জন্মের পর খাতায়-কলমে প্রমাণিত হয়ে যায় যে, ঈশানের বাবা যশ দাশগুপ্ত। যাই হোক, এইসব অতীত এখন। সংসার, সন্তান, ক্যারিয়ার একসঙ্গে সামলাচ্ছেন নায়িকা।

সম্প্রতি নিজের সংসদীয় এলাকা বসিরহাটে গিয়েছিলেন নুসরত। উপলক্ষ বসিরহাট কলেজের ৭৫তম জন্ম জয়ন্তী। সেখানে তিনি উপস্থিত হয়ে সকল কলেজ পড়ুয়াদের অনুরোধে গান গাইলেন। প্রিয় অভিনেত্রীর গলায় গান শুনে আপ্লুত গেলেন কলেজের ছাত্রছাত্রীরাও। এবিষয়ে নুসরতকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, মানুষজনের ভালো লাগা এবং বাচ্চাদের ভালো লাগার জন্যে তিনি গান গান, তবে তাঁর খুব একটা ভালো লাগে না গান।সেখানে গান গাওয়ার পরেই অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে ‘বেসুরো’ গান গাওয়ার অভিযোগ উঠল। ভিডিওতে অভিনেত্রীকে দেখা যায় যে, তিনি নিজের অভিনীত ২০১৬ সালে মুক্তি পাওয়া ‘লাভ এক্সপ্রেস’ (Love Express) সিনেমার ‘মন বলেছে আমার’ (Mon Boleche Amar) গানটিকে বেছে নিয়ে গাইছেন। বসিরহাট কলেজের সেই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই নায়িকাকে তীব্র কটাক্ষের শিকার হতে হয় নেটিজেনদের কাছ থেকে। অনেকেই বলেন, নুসরতের থেকে রানু মন্ডল ভালো গান করে”। কেউ আবার কটাক্ষের সুরে বলেন, “কী কনফিডেন্স!”

বসিরহাট কলেজের উৎসবে গিয়ে অভিনেত্রী আরও জানান, “আমি এই কলেজের সভাপতি, তাই গর্বের জায়গা থেকেই বলছি, এখানে ৭ বছর আগেও অনুষ্ঠান করতে এসেছিলাম, এখানকার মানুষের কাছে অনেক ভালোবাসা পেয়েছি। সেই ঋণ আমার শোধ করার পালা। আমি চাই কলেজের আরও উন্নতি হোক। এই কলেজে আমরা প্রথমদিকে যেভাবে দেখেছিলাম, ঈশ্বরের কৃপায় এই কলেজকে উন্নত জায়গায় পৌঁছে দিতে পেরেছি। বসিরহাট কলেজেকে আমরা যেন আরও উন্নত জায়গায় পৌঁছে দিতে পারি, এখানকার কলেজে ছাত্রছাত্রীরাও যেন আরও উন্নতি করে। নিজের জীবনে অনুপ্রাণিত হয়, প্রতিষ্ঠিত হয়।”

Related Articles