×

বহু চেষ্টার পরেও মেলেনি সরকারি চাকরি, বর্তমানে গাঁদা ফুলের চাষ করে লাখপতি ২৪ বছরের যুবক!

বর্তমানে গাঁদা ফুলের চাষ করে লাখপতি ২৪ বছরের যুবক!

কিছু কিছু মানুষ প্রমান করে দেয় যে সফলতার জন্যে কোনও নির্দিষ্ট বয়সের দরকার হয় না, মানুষ যেকোনও বয়সেই নিজের পরিশ্রমের দ্বারা স্বপ্ন পূরণ করতে পারেন। কিন্তু কথায় আছে, কখনই হাল ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়। কষ্ট করলেই কেষ্ট পাওয়া সম্ভব। আজকে আমরা এমন একটি কাহিনী আপনাদের জানাবো, যা শুনলে হেরে যাওয়া মানুষ অনেকটাই আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবেন। আজ কথা বলা হবে, দীপক (Deepak) কুমারকে নিয়ে, যার বয়স মাত্র ২৪ বছর। ভোজপুরের বেনুয়ার টোলার বাসিন্দা তিনি। তাঁর জীবনের লক্ষ্য ছিল, ডিফেন্স(Defence) এ যাওয়ার।

সেই কারণে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে প্রচুর পরিশ্রম করেছিলেন এই পেশায় নিযুক্ত হওয়ার জন্যে। দিনরাত এক করেছেন। কিন্তু এত পরিশ্রমের পরেও তিনি ব্যর্থ হন। কিন্তু হাল ছাড়েন নি তিনি। এরপর তিনি ভাবলেন, ডিফেন্স নয়, চাষ-বাসের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হবেন তিনি। কারণ তাঁর বাড়ির সকলেই কৃষিকাজের সঙ্গে যুক্ত। মাঠে-ঘাটে ধান, গম চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন দীপকের বাড়ির সবাই। কিন্তু তাঁর বরাবরই ইচ্ছে ছিল, সকলের তুলনায় আলাদা কিছু করে দেখানোর। এরপর তিনি নিজের ক্ষেতে ফুল চাষ শুরু করতে শুরু করেন। সময়টা ছিল ২০২০ সালের প্রথম দিকে।

যখন ঘোর করোনার মরসুম। দিকে দিকে মানুষ কাজ হারাচ্ছেন। সে সময় তিনি চারটি প্রজাতির গাঁদা ফুলের চারা প্রথম রোপণ করেন। কিন্তু তাতেও বাধ সেধেছিল লকডাউন। যার ফলে সমস্ত কিছু বন্ধ থাকায় তাঁর প্রথম চাষ করা আড়াই বিঘা জমির ফুল নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে তিনি অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হন। কিন্তু তবুও তিনি হাল ছেড়ে দেননি। আবার তিনি নতুন করে চাষ করেন। এরপর ভবুয়া, বক্সার, বিক্রমগঞ্জ-সহ প্রচুর এলাকায় তিনি ফুল সরবরাহ করতে শুরু করেন। আসলে গাদা ফুল সমস্ত ধর্মীয় অনুষ্ঠান বা শুভ কাজে ব্যবহার করা হয়।

সেক্ষেত্রে তাঁর ফুল অগ্রিম বুকিং হতে শুরু করে। ডিফেন্সে চাকরির শর্ত পূরণ না হওয়ার ফলে চাষাবাদের মাধ্যমে সফল ব্যক্তি হতে চেয়েছিলেন তিনি। সেই থেকেই গাঁদা ফুলের চাষ শুরু তাঁর। এখন প্রতিদিন তিনি গড়ে ১৫০০ টাকা উপার্জন করেন। কোন উৎসবের ক্ষেত্রে প্রতিদিন ৫০০০ টাকা উপার্জন হয়। ইউটিউবের মাধ্যমে এই ফুল চাষ করা শিখেছেন তিনি। যা কিনা সকলের কাছে অনুপ্রেরণা হয়ে থেকে যাবে।

Related Articles