×

এই জিনিসটি দিয়ে দিলেই কেল্লাফতে! গাছ ভরে যাবে জবা ফুলে

গাছে এই সারগুলির প্রয়োগে করলে প্রচুর ফুল পাওয়া সম্ভব।

এমন অনেক মানুষ রয়েছেন যারা বাড়িতে শখের বসে বিভিন্ন রকমের গাছ লাগাতে পছন্দ করেন। তাই অনেকে বাড়ির বাগান অথবা ছাদে বিভিন্ন রকমের ফুলের গাছ লাগান। ফুলের গাছ বাড়ির সৌন্দর্য বৃদ্ধি করার পাশাপাশি পুজোর কাজও লাগে। আর প্রতিটি বাড়িতেই যেই গাছটি সবচেয়ে বেশি মাত্রায় দেখা যায় সেটি হলো জবা গাছ। অন্যান্য গাছ না থাকলেও এই গাছটি প্রতিটি বাড়িতেই থাকবে। তবে অনেক সময় জবা গাছে বিভিন্ন রকম সমস্যা দেখা দেয়। যার প্রতিকার অনেকেরই অজানা।

সাধারণত জবা গাছ দুই ধরনের হয়। একটি দেশি জবা ও আরেকটি ব্যাঙ্গালোর ভ্যারাইটি জবা। আর দুটো গাছের পরিচর্যা দুরকমের হয়। দেশী গাছ সাধারণত শীতকালে ঘুমন্ত অবস্থায় থাকে। শীতকালে এদের ছায়াতে রাখতে হয় এবং ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে এদের প্রুনিং করতে হয়। আবার অন্যদিকে ব্যাঙ্গালোর জবা শীতকালে সজাগ থাকে। তাই এদের দিনের বেলা অন্তত ৪ থেকে ৫ ঘন্টা রোদ পাওয়াটা অত্যন্ত জরুরী। এছাড়াও পরিচর্যার জন্য গাছে কিছু সার প্রয়োগ করতে হয়।

সাধারণত ব্যাঙ্গালোর জবার ক্ষেত্রে পটাশ খুবই ভালো একটি উপাদান। তবে রাসায়নিক পটাশও প্রয়োগ করা যেতে পারে। কিন্তু এর কিছু নির্দিষ্ট মাত্রা রয়েছে। যা সঠিক মাত্রায় গাছে প্রয়োগ করলে তবেই মিলবে সঠিক ফল। জবা গাছের ক্ষেত্রে টবপ্রতি ১ চামচ করে সার প্রয়োগ করতে হয়। তবে যদি রাসায়নিক পটাশ কেনা সম্ভব না হয় তার জন্যেও রয়েছে একটি বিকল্প। সাধারণত কলার খোসার মধ্যে থাকে অর্গানিক পটাশ। তাই এটি গুঁড়ো করে টবপ্রতি দু চামচ করে দিতে হবে।

এছাড়াও লিকুইড সার হিসেবে করার খোসা ভেজানো জলও ব্যবহার করা যেতে পারে। এর পাশাপাশি গাছের নাইট্রোজেনের চাহিদা মেটানোর জন্য গাছের গোড়ায় সর্ষের খোল ভেজানো জল দেওয়া যেতে পারে। এছাড়া গোবর সার তো আছেই। গাছে এই সারগুলির প্রয়োগে প্রচুর ফুল পাওয়া সম্ভব। তবে অনেক সময় গাছের মধ্যে মিলিবাগ জাতীয় পোকার সংক্রমণ হয়। এই সমস্যা দূর করতে একতারা নামক একটি ওষুধ গাছে প্রয়োগ করা যেতে পারে। ১ লিটার জলে ১ গ্ৰাম একতারা মিশিয়ে প্রতি সপ্তাহে একবার গাছে স্প্রে করলে গাছে মিলিবাগের সংক্রমণ ঠেকানো যায়।

Related Articles