×

এইভাবে ‘অমলেট কারি’ রান্না করলে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, হাত চাটবে আট থেকে আশি সকলে

এই ভাবে ডিম রান্না করলে স্বাদ হবে অসাধারণ।

বাঙালি মানেই খাদ্য রসিক। ভেজ হোক কিংবা ননভেজ সবই লোভনীয় স্বাদে রান্না করতে পারদর্শী বাঙালি। কচি পাঁঠার ঝোল হোক কিংবা গাছ পাঁঠা বাংলা ছাড়া তেলেঝোলে এ ধরনের যোগসূত্র আর কোথাও পাওয়া যাবে না। আর বাঙালিদের খাদ্যতালিকায় থাকা একটি অন্যতম খাবার হলো ডিম। আর ডিমের বিভিন্ন পদ রান্না করে খাওয়া হয় প্রতিটি বাড়িতেই। কিন্তু সবসময় ডিমের একই ধরনের পদ খেতে খেতে অনেকেরই মুখ বেজার হয়ে যায়। তাই তৈরি করতে হয় বিভিন্ন রকমের নিত্য নতুন ডিমের পদ। সেরকমই আজ আপনাদের জন্য রইল একটি নতুন ডিমের রেসিপি সম্পর্কে।

উপকরণ-

১. ডিম
২. পেঁয়াজ কুচি
৩. পেঁয়াজ বাটা
৪. আদা-রসুন বাটা
৫. হলুদ গুঁড়ো
৬. লঙ্কা গুঁড়ো
৭. শুকনো লঙ্কা
৮. গরম মসলা গুঁড়ো
৯. কাঁচা লঙ্কা কুচি
১০. নুন
১১. চিনি
১২. তেজপাতা
১৩. সর্ষের তেল
১৪. আলু

প্রণালী-

প্রথমে একটি বাটিতে চাহিদা অনুযায়ী ডিম ভেঙে ফেটিয়ে নিতে হবে। এরপর তাতে আদা-রসুন বাটা, পেঁয়াজ বাটা ও পেঁয়াজ কুচি দিয়ে দিতে হবে। এবার তাতে সামান্য পরিমাণ কাঁচালঙ্কা কুচি দিয়ে ভালো করে আবার ফেটিয়ে নিন।

তারপর একটি কড়াইতে সামান্য পরিমাণ সরষের তেল গরম করুন ও তার মধ্যে কিছুটা ফ্যাটানো ডিম দিয়ে দিন। এবার ডিমটিকে অমলেটের মতো ভেঁজে তুলে নিন। এভাবে চাহিদা অনুযায়ী অমলেট বানিয়ে তুলে ফেলুন।

এবার সেই কড়াইয়ের মধ্যেই সামান্য পরিমাণ সর্ষের তেল গরম করে তার মধ্যে ডুমো ডুমো করে কাটা আলু ও সামান্য পরিমাণ নুন ও হলুদ ছড়িয়ে লালচে করে ভেজে তুলে নিন। আলু ভাজা হয়ে গেলে তার মধ্যে আরও কিছুটা তেল দিয়ে তাতে তেজপাতা ও শুকনো লঙ্কা ফোড়ন দিয়ে দিন। এরপর গন্ধ ছাড়লে তার মধ্যে আদা রসুন বাটা ও পেঁয়াজ বাটা দিয়ে কাঁচা গন্ধ না যাওয়া পর্যন্ত ভাজতে থাকুন।

তারপর তাতে হাফ টেবিল চামচ লঙ্কা ও হলুদ গুঁড়ো দিয়ে খানিকক্ষণ কষিয়ে নিন। মশলা থেকে তেল ছাড়লে তাতে স্বাদমতো নুন ও কয়েক দানা চিনি ও ভেজে রাখা আলু দিয়ে আরো কিছুক্ষণ কষিয়ে নিন। এরপর তাতে সামান্য পরিমাণ গরম জল দিয়ে কিছুক্ষণ ফুটতে দিন।

কিছুক্ষণ ঢাকা দিয়ে আঁচ কমিয়ে মিনিট দশেক রান্না করে তার মধ্যে ভাজা ডিমের ওমলেট গুলি ছেড়ে দিন। এবার আরো কিছুক্ষণ ফুটিয়ে নামিয়ে নিলেই তৈরি দুর্দান্ত স্বাদের ডিমের ওমলেট কারি।

Related Articles