×

ঠাকুমার স্টাইলে এইভাবে ‘মোচার ঘন্ট’ বানালে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, হার মানাবে মাছ মাংসের স্বাদকেও

এই ভাবে সুস্বাদু মোচার ঘন্ট বানালে স্বাদ হবে অসাধারণ হাত চাটবে আট থেকে আশি সকলে।

প্রতিটি বাড়িতেই সপ্তাহের কোনো না কোনো দিন নিরামিষ খাওয়ার নিয়ম রয়েছে। আর এই নিরামিষের দিনগুলিতে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় থাকেন বাড়ির মহিলারা। বাড়ির প্রতিটি মানুষের মুখের রুচি অনুযায়ী রান্না করতে গিয়ে হিমশিম খান মহিলারা। তাই আজ আপনাদের জন্য রইল সুস্বাদু মোচার ঘন্টের রেসিপি। যা পাতে পরলে পাত পরিস্কার হবে বাড়ির আট থেকে আশি প্রত্যেকের। আসুন তবে দেখে নিন কিভাবে বানাবেন এই রেসিপিটি-

উপকরণ-
১. মোচা
২. ছোলা
৩. চিনি
৪. নুন
৫. ছোলার ডাল
৬. কাঁচালঙ্কা বাটা
৭. তেজপাতা
৮. আদা বাটা
৯. চালের গুঁড়ো
১০. জিরে বাটা
১১. ঘি
১২. সর্ষের তেল
১৩. গরম মসলা
১৪. হলুদ গুঁড়ো
১৫. সাদা জিরে
১৬. আলু

প্রণালী-

প্রথমে কলার মোচা ছাড়িয়ে কুচি কুচি করে কেটে দিতে হবে। এবার আগে থেকে ভিজিয়ে রাখা ছোলার ডাল স্মুথ করে বেটে নিতে হবে। তারপর একটি কড়াইতে জল ও সামান্য পরিমাণ হলুদ দিয়ে মোচাটিকে সেদ্ধ করে জল ঝরিয়ে রাখতে হবে।

এরপর বেটে রাখার ছোলার ডালের মধ্যে একে একে ১ চামচ আদা বাটা, ১ চামচ হলুদ গুঁড়ো, ১ চামচ কাঁচালঙ্কা বাটা ও স্বাদমতো নুন দিয়ে মেখে নিতে হবে। তারপর একটি কড়াইতে সর্ষের তেল গরম করে সেই মিশ্রণ থেকে কিছুটা করে নিয়ে বড়ার আকারে বড়া ভেজে নিতে হবে।

এবার সেই ভাজা তেলের মধ্যেই সাদা জিরে ও তেজপাতা ফোড়ন দিয়ে দিতে হবে। তারপর তাতে কেটে রাখা আলু দিয়ে কিছুক্ষণ ভেজে নিতে হবে। এরপর ভাজা আলুর মধ্যেই জিরে বাটা, কাঁচালঙ্কা বাটা ও আদা বাটা দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে দিতে হবে। এবার তাতে স্বাদমতো নুন, সামান্য চিনি, ভিজিয়ে রাখা ছোলা ও হলুদ গুঁড়ো দিয়ে ভালোমতো কষিয়ে নিতে হবে।

মসলা কষা হয়ে গেলে তাতে সামান্য নারকেল কোরা দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে নিয়ে তাতে কলার মোচা দিয়ে দিতে হবে। এবার কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে নিয়ে তাতে আগে থেকে ভেজে রাখা বড়া, জল দিয়ে গোলানো চালের গুঁড়ো, গরম মসলা ও ঘি দিয়ে মিনিট পাঁচেক রান্না করে নিলেই তৈরি সুস্বাদু স্বাদের ‘মোচার ঘন্ট’। যা গরম গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করলে নিরামিষের দিনগুলিতে পুরো জমে যাবে।

Related Articles