×

পনিরের এই নিরামিষ তরকারি হার মানাবে মাছ মাংসের স্বাদকেও, চেয়ে চেয়ে খাবে বাচ্চা থেকে বুড়ো

পনির দিয়ে রান্না করা একদম নতুন ধরণের একটি রেসিপি 'পনির মহারানি'।

প্রতিদিন একঘেয়ে মাছ এবং মাংসের বিভিন্ন তরকারি খেতে অনেকেরই ভালো লাগেনা। ফলে মাঝে মাঝে খেতে মন চায় একটু সুস্বাদু নিরামিষ খাবার। এছাড়াও বাড়িতে বিভিন্ন পুজোর দিনে সাধারণত নিরামিষ রান্নার চল রয়েছে। আবার বেশিরভাগ বাড়িতেই সপ্তাহের অন্তত একটি দিন সম্পূর্ণ নিরামিষ রান্না হয়ে থাকে। আজকের এই প্রতিবেদনে রইলো এমনই একটি সম্পূর্ণ নিরামিষ রান্না ‘পনির মহারানি’ সম্পর্কে। যা সহজেই ঘরে তৈরি করে নেওয়া যাবে।

উপকরণ :
১. পনির
২. দুধ
৩. কাজু
৪. আদা বাটা
৫. টমেটো বাটা
৬. কাঁচালঙ্কা বাটা
৭. শুকনোলঙ্কা গুঁড়ো
৮. হলুদ গুঁড়ো
৯. গোটা জিরে
১০. গোটা ধনে
১১. গোটা মৌরি
১২. কসৌরি মেথি
১৩. নুন
১৪. চিনি
১৫. টক দই
১৬. সর্ষের তেল
১৭. বেসন
১৮. হিং
১৯. গরমমশলা গুঁড়ো

প্রণালী :
প্রথমে চাহিদা অনুযায়ী পনির নিয়ে টুকরো টুকরো করে কেটে তাতে সামান্য পরিমাণ নুন, শুকনোলঙ্কা গুঁড়ো ও গরমমসলা গুঁড়ো মাখিয়ে নিতে হবে।

এরপর তাতে দু চামচ টকদই দিয়ে আবার ভালোমতো মাখাতে হবে।

এবার ম্যারিনেট করা পনিরের টুকরোগুলো বেসনের মধ্যে কোট করে গরম তেলে দুপিঠ ভালোভাবে ভেজে নিতে হবে।

এবার পনিরের মসলা তৈরি করার জন্য গোটা ধনে, মৌরি, জিরে, শুকনো কসৌরি মেথি হালকা ভেজে ভালোভাবে গুঁড়ো করে নিতে হবে।

এরপর পনির ভাজা তেলে আরও কিছুটা তেল দিয়ে তাতে গোটা জিরে ও হিং ফোড়ন দিতে হবে। এরপর তাতে একে একে কাঁচালঙ্কা বাটা, টমেটো বাটা ও আদা বাটা দিয়ে দিতে হবে।

এবার একটু নাড়াচাড়া করে তাতে আগে থেকে বেটে রাখা কাজুবাদাম ও সামান্য পরিমাণ দুধ ঢেলে দিতে হবে।

সবকিছু দেওয়ার পর একটু ফুটিয়ে নিয়ে তাতে আগে থেকে তৈরি করে রাখা ভাজা মসলা দিয়ে দিতে হবে। মসলা দেওয়ার পর কিছুক্ষণ ভালোমতো কষিয়ে তাতে স্বাদ অনুযায়ী নুন, সামান্য চিনি ও সামান্য পরিমাণ জল দিয়ে দিতে হবে।

এর কিছুক্ষণ পর মসলার মধ্যে আগে থেকে ভেজে রাখা পনিরের টুকরোগুলি দিয়ে দিতে হবে।

পনির দেওয়ার পর সেগুলি কিছুক্ষণ ফুটিয়ে নিয়ে তাতে গরম মসলা ও ভাজামশলা ছড়িয়ে নাড়াচাড়া করে নামিয়ে নিতে হবে।

ব্যস তাহলেই তৈরি ভাত এবং রুটির সাথে খাওয়ার জন্য সুস্বাদু ‘পনির মহারানি’।

Related Articles