×

রাতারাতি সুন্দরী হয়ে উঠলেন কাজল কন্যা নাইসা! মুখ খুললেন অভিনেত্রী নিজেই

রূপ ও সৌন্দর্য্যের দিক দিয়ে মাকেও হার মানায় অজয়-কাজল কন্যা নাইসা।

পাপরাৎজিদের দৌরাত্মে সর্বদাই লাইম-লাইটে থাকেন বলিউডি স্টারকিডরা। কেননা তাঁদের বাবা-মা’দের ফ্যান ফলোয়ার্স ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে দেশ থেকে দেশান্তরে। আর তারকাদের জীবন সম্পর্কে সর্বদাই উৎসুক থাকেন নেটিজেনরাও। এতদিন শোনা যেত, অজয় কন্যা নাইসা (Nysa Devgan) নাকি নিজেকে স্পটলাইট থেকে দূরে রাখতেই পছন্দ করেন, এমনকি তাঁর বাবাও সন্তানদের বরাবরই লাইমলাইট থেকে দূরে রাখেন। কিন্তু এই ধারনা ভেঙেছেন কাজল (Kajol) কন্যা নিজেই।

নাইসা সোশ্যাল মিডিয়ায় যথেষ্ট অ্যাকটিভ। তবে আগে নাইসাকে খুব একটা সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা যেত না। এখন নাইসার এক একটা সেক্সি ফটোশ্যুট হুঁশ উড়িয়ে দিতে বাধ্য নেটিজেনদের। যদিও নাইসার মুখমণ্ডল একেবারে কাজলের আদলে গঠিত। তবে ইদানিং হঠাৎ করেই সুন্দরী হয়ে উঠেছেন অজয় দেবগণ (Ajay Devgan) কন্যা নাইসা? যা দেখে ভক্তদের মনে জাগছে একাধিক প্রশ্ন? হঠাৎ করে কিভাবে সুন্দরী হয়ে উঠলেন নাইসা? রহস্য কি? এই বয়সেই প্লাস্টিক সার্জারি করিয়ে ফেললেন তিনি? উত্তরের খোঁজে অনুরাগী মহল থেকে বি-টাউন। আশি-নব্বইয়ের দশকের বলিউডের বহু দাপুটে অভিনেত্রীদের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী হলেন কাজল।

প্রায় তিনদশক ধরে এই অভিনেত্রী বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। বলিউডে শাহরুখ (Shahrukh Khan)-কাজল জুটি এককথায় এভারগ্রিন! বর্তমানে কাজল-অজয়ের দুই সন্তান, একটি ছেলে এবং একটি মেয়ে! কিন্তু রূপ ও সৌন্দর্য্যের দিক দিয়ে মাকেও হার মানায় অজয়-কাজল কন্যা নাইসা। তাঁকে দেখে মনে হবে, বছর কুড়ির কাজল। কাজলের মতোই তাঁর চোখ, জোড়া ভ্রু এবং আদব-কায়দা। যদিও শোবিজ দুনিয়ায় এখনও পা রাখেননি নাইসা। এই মুহূর্তে তিনি সিঙ্গাপুরের ইউনাইটেড ওয়ার্ল্ড কলেজ অফ সাউথ ইস্ট এশিয়ায় পড়াশোনা করছেন। সম্প্রতি, টিনসেল নগরীতে দিওয়ালির অনুষ্ঠান উপলক্ষে নাইসার কিছু সাজপোশাকের ছবি দেখে রীতিমতো অবাক হয়ে গিয়েছেন নেটিজেনরা। রাতারাতি নাইসা বদল। তাঁর গায়ের রং, নাক, ঠোঁট সবকিছুই বদলে গিয়েছে। সম্প্রতি তার চেহারায় এসেছে আমূল পরিবর্তন। তবে কি প্লাস্টিক সার্জারিতে মজলেন অজয় কন্যা? এবার এই প্রশ্নের উত্তর দিলেন কাজল নিজেই।

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে কাজল বলেছেন, “নায়সা সারা ক্ষণ ইন্টারনেট ব্রাউজিং করে। রূপচর্চা এবং স্বাস্থ্য নিয়ে ও একটু বেশিই সচেতন। সপ্তাহে অন্তত তিন বার একটি করে ফেসমাস্ক লাগায়। আমাকেও করতে বলে। ও ঠিক ওর বাবার মতো, চেহারা বা স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন।” তবে শুধু কসমেটিক্স নয়, নাইসার রূপের রহস্যে উপযুক্ত খাদ্যাভ্যাস। কাজলজর কথায়, “নাইসা প্রতিদিন সকালে উঠে ২-৩ গ্লাস ঈষদুষ্ণ জল খায় খালি পেটে। এতে ঐর পাকস্থলী ঠিক থাকে। তার পর ও জলখাবারে খায় সেদ্ধ ডিম, টাটকা ফল এবং ওটস্। সারা দিন এমনই স্বাস্থ্যকর খাওয়াদাওয়ার অভ্যাস বজায় রাখে নাইসা”। সুতরাং প্লাস্টিক সার্জারির মতো কিছুই করেনি নাইসা। পুরোটাই ডেইলি রুটিনের কামাল। তবে নাইসা তাঁর হটনেসের জন্যে প্রায়শই ট্রোলের শিকার হন। তবে প্রথম দিকে এই সব ট্রোলিং নিয়ে মাথা ঘামালেও, এখন তিনি এসব কিছুকে পাত্তা দেন না।

Related Articles