×

‘মিঠুন সফল হলে আমি অভিনয় ছেড়ে দেব’, জিতেন্দ্রর অপমানের উপযুক্ত জবাব দেন ‘ফাটাকেষ্ট’

এক কথায় বাংলা ও বাঙালির সেরা অভিনেতা হলেন মিঠুন চক্রবর্তী (Mithun Chakraborty)।

এক কথায় বাংলা ও বাঙালির সেরা অভিনেতা হলেন মিঠুন চক্রবর্তী (Mithun Chakraborty)। পাশাপাশি ডান্সের দিকে দিয়েও সেরা তিনি। যাঁকে বলে বলিউডের “ডিস্কো ডান্সার” তিনি। আজ তিনি সিনিয়র অভিনেতা। এককালে বাংলা থেকে হিন্দি সবেতেই তিনি রাজত্ব করেছেন। তবে অনেকদিন ধরেই বলিউড টলিউড সব মহল থেকেই বিরতি নিয়েছেন আমাদের বাংলার “ফাটাকেষ্ট”। যদিও নাচ তাঁর অঙ্গে অঙ্গে জড়িত বলেই নাচ নিয়েই তিনি এগিয়ে চলেছেন। মিঠুন চক্রবর্তী এত মজাদার মানুষ যিনি এখনও সকল বাঙালির মধ্যে এভারগ্রিন অভিনেতা হিসেবে রয়ে যাবেন। যিনি এখনও নাচে মাতিয়ে রাখেন সর্বত্র। কিছুদিন আগেই ঘটা করে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন মিঠুন চক্রবর্তী। তাও আবার খোদ প্রধানমন্ত্রীর সামনে।

একসময় বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতে মিঠুন চক্রবর্তীর নায়িকা হয়েছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত (Rituparna Sengupta), দেবশ্রী রায়ের (Debashree Roy) মতো একাধিক সুপারস্টার অভিনেত্রীরা। বলিউডেও জুহি চাওলা (Juhi Chaola), পুনম ধিলোনের মতো একাধিক নায়িকাদের সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় সেরেছেন তিনি। এক কথায় বাংলা ও বাঙালির সেরা অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। অন্যদিকে বলিউডের আরও একজন সুপারস্টার অভিনেতা হলেন জিতেন্দ্র (Jitendra Kapoor)। তিনিও নিজস্ব অভিনয় বলে বলিউডে পাকাপাকিভাবে নিজের রাজত্ব তৈরি করেছেন। কিন্তু শোনা যায়, বলিউডে তাঁর সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন মিঠুন চক্রবর্তী।

মিঠুন প্রথম ছবিতে অভিনয় করার পরেই জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলেন। বলিউডে সাফল্য পেতে তাঁকে কম কষ্ট করতে হয়নি, অনেক স্ট্রাগল করে আজ তিনি বাংলার গৌরাঙ্গ থেকে সারা দেশের ‘ডিস্কো ডান্সার’।
জানা গিয়েছে যে, সেইসময় জিতেন্দ্র ও মিঠুন দুজনেই একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন। অভিনেতা জিতেন্দ্রও ছিলেন নাচে তুখোড়। কিন্তু সেই সময়ে দুই নায়কের মধ্যেই প্রতিযোগীতা ছিল তুমুল। ১৯৮৬ সালে একসঙ্গে তিনটি ছবিতে অভিনয় করেছেন মিঠুন ও জিতেন্দ্র। ‘অ্যায়সা প্যায়ার কঁহা’ (Aisa Pyaar Kaha), ‘জাল’(Jaal), ‘স্বর্গ সে সুন্দর’(Swarg se sundar)। অভিনেতা এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, “আমি জিতেন্দ্রর সঙ্গে একই ছবিতে অভিনয় করলেও তাঁর একটি মন্তব্য ভুলতে পারিনি।”

বলিউডে শুরুর দিকে পরিচালকদের দরজায় দরজায় ঘুরেছেন মিঠুন কাজ পাওয়ার জন্যে। একদিন তিনি এক পরিচালকের অফিসে গিয়েছিলেন পোর্টফোলিও জমা দিতে, সেখানেই উপস্থিত ছিলেন জিতেন্দ্র। তখন জিতেন্দ্র মিঠুনকে কটাক্ষ করে বলেছিলেন, যদি মিঠুন কখন ও বলিউডের নায়ক হতে পারে তাহলে তিনি অভিনয় ছেড়ে দেবেন। সেই মুহূর্তে মিঠুন কিছুই বলতে না পারলেও বলিউডের অন্যতম সুপারস্টার হয়ে যোগ্য জবাব দিয়েছিলেন।

১৯৮২ সালে ‘ডিস্কো ডান্সার’ ছবির মাধ্যমে লাইমলাইটে আসেন মিঠুন চক্রবর্তী। আর মিঠুনের দাপটে পিছু হঠেছিলেন জিতেন্দ্র। সেই সময়ে দুই অভিনেতার স্টাইলই ছিল যুবসমাজের আইডল। শোনা যেত, এক সময়ে জিতেন্দ্রর ১০টি ছবি মুক্তি পেলে, মিঠুন চক্রবর্তীর বছরে ১৫টি ছবি মুক্তি পেত। জিতেন্দ্রর ৫ দশকের কেরিয়ারে মুক্তি পেয়েছিল ২২৪টি ছবি। আর মিঠুন চক্রবর্তীর ৪ দশকেরও কম সময়ে ৩১৫টি ছবিতে অভিনয় করেছেন। মুমতাজ (Mumtaz), রেখা (Rekha), হেমা মালিনী (Hema Malini), শ্রীদেবী (Sridevi), জয়াপ্রদার (Jaya Prada) মতো নায়িকাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল জিতেন্দ্রর। অন্য দিকে শ্রীদেবীর সঙ্গেও মিঠুনের সম্পর্ক অনেক দূর পর্যন্ত এগিয়েছিল।

Related Articles