×

দেবিনাকে বউ হিসেবে বরণ করে ঘরে তুলবে বরফি! রইল প্রোমো

দেবিনাকে বধূবরণ করতে অস্বীকার করল বরফি! কি প্রতিক্রিয়া করলেন দেবিনা? স্টার জলসার অন্যতম টপার ধারাবাহিক ‘আয় তবে সহচরী’ (Aay Tobe Sahochori)।শুরু থেকেই এই ধারাবাহিকের স্থান হয়ে গিয়েছে, টিআরপির সেরা দশে। অসম বয়সী বন্ধুত্বের সম্পর্ক নিয়েই এই কাহিনী ছকা হয়েছে। এরকম একটা ভিন্ন ধর্মী গল্পের স্বাদ কে না উপভোগ করবে বলুন! শুরু থেকেই কাহিনীতে ফুটে উঠেছিল সহচরী অর্থাৎ গল্পের নায়িকা বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়ির জন্যে সে শুধু নিজের ভালোবাসা উজাড় করে দিয়েই গেল, কিন্তু তাঁকে কেউই ভালবাসে না। এমনকী তাঁর স্বামীও তাঁকে এক্কেবারেই সহ্য করতে পারেনা। ঠিক এই মুহূর্তেই তাঁর সঙ্গে বরফির সঙ্গে দেখা হয়, তাঁদের বন্ধুত্ব হয়।

বরফি বয়সে তাঁর মেয়ের বয়সী হলেও তাঁর সঙ্গে সহচরীর ভাল একটি সম্পর্ক তৈরি হয়ে যায়। এমনকী বরফির জন্যই শ্বশুরবাড়ির অমতে সে ফের পড়াশোনা শুরু করে, এরপর সহচরীর ছেলের বৌ হয় বরফি। সে অনেক কাহিনী। তবে এই গল্পের মোড় এখন পুরোপুরি বেঁকে গিয়েছে। এখন ধারাবাহিকে একেকটা ধুন্ধুমার পর্ব চলছে সহচরীর স্বামী সমরেশের সঙ্গে তাঁরই ছাত্রী দেবীনার প্রেম। সেই নিয়েই এখন ধারাবাহিকের একেকটা ধুন্ধুমার কান্ড।ইতিমধ্যেই দেবীনা সহচরীর জীবনে ঢুকে সব লন্ডভন্ড করে দিয়েছে, সহচরীকে বিভিন্ন ভাবে পরাস্ত করে শেষে বাড়ি থেকেই বের করে দিয়েছে। আর স্বামীর থেকে অজস্র প্রত্যাখ্যান পেতে পেতে সহচরী জীবনে ঘুরে দাঁড়ানোর পরিকল্পনা করেছেন। ইতিমধ্যেই সে একটি রেডিও স্টেশনে চাকরি পেয়েছেন, এবং জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছেন সেখানেও।

চাকরি পেয়েই সে ঠিক করেছে সমরেশকে সে ডিভোর্স দেবে। এখন শ্বশুরবাড়িও ছেড়েছে সে, বর্তমানে বরফির মামার বাড়ির থাকে সহচরী। এদিকে দেবীনা কায়দা করে সমরেশকে বিয়ে করছেন। কারণ সে এখন দাবি করছেন যে, তাঁর পেটে সমরেশের সন্তান। সেই কারণে একপ্রকার বাধ্য হয়েই সমরেশ দেবীনাকে বিয়ে করতে বাধ্য হচ্ছে। এদিকে বিয়ের দিনই ঘটে যায় একটি ধুন্ধুমার কান্ড। সমরেশের সঙ্গে শেষমেষ বিয়ে হয়নি দেবিনার। সই এর ছোট্ট দেওর বুবাই এর সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। কিন্তু দেবিনা কিছুতেই এই বিয়ে মেনে নেবে না। তখন একপ্রকার বাধ্য হয়েই বুবাই বলে একবার যখন তাঁকে সিঁদুর পড়িয়েছেন তিনি বিয়ে সম্পুর্ন তিনি করেই ছাড়বেন। এই পরিস্থিতিতেই তখন পুলিশ এসে উপস্থিত হয়। জিজ্ঞাসা করে কি হচ্ছে এখানে, তখন দেবিনা বলে তাঁকে জোর করে বিয়ে দেওয়া হচ্ছে। বুবাইকে গ্রেফতার করুন।

তখন দেবিনার বাবা বলেন, না বুবাই দোষী নয়। সমরেশ দোষী ওনাকে গ্রেফতার করুন। তখন দেবিনার বাবার পক্ষের উকিল বলেন, হ্যাঁ ওনাকেই গ্রেফতার করুন কারণ তিনি জোর কর মিথ্যে মামলা সাজাতে বলেছিলেন উকিলকে। তখন পুলিশ গ্রেফতার করে সমরেশকে। আর ওদিকে বিয়ে হয়ে যায় দেবিনা ও বুবাই এর। তবে সই তখন বলে তিনি যে ভাবেই হোক সমরেশকে ছাড়িয়ে আনবেন কিন্তু সমরেশের সঙ্গে কোনোদিনও ঘর করবেন না এমনকী তিনি সমরেশের বাড়িও থাকবেন কিন্তু পেইন গেস্ট হয়ে। কিন্তু বরফি তো তাঁর সই মায়ের সঙ্গে তাঁর শ্বশুরের মিল করাবেনই। এদিকে বাড়িতে ঢুকেই বরফিকে দেবিনা বলেন তাঁকে বরণ করতে।

বরফি তখন কিছুতেই দেবিনার বরণ করতে রাজি হয় না, তখন দেবিনা বলে তুমিই এই বাড়ির বউ তোমাকেই আমার বধূ বরণ করতে হবে, তখন বরফি বলে হ্যাঁ করতে পারি যদি আমার সঙ্গে তুমি বন্ধুর মতন ব্যবহার করো, এরকম ব্যবহার করলে কিছুতেই করব না। তখন দেবিনা বলেন, আমার সমরেশের বিয়ে ভাঙতে পেরে খুব বেড়ে গিয়েছো তোমার হাত কি করে ভাঙতে হয় আমি জানি, তখন বরফি বলে, আমার হাত যে একবার ধরবে সে আর হাত সোজা করতে পারবে না কোনোদিন। এবার কি হবে কোনদিকে মোড় নেবে গল্প সেটাই দেখার পালা!

Related Articles

Back to top button